English Version

আজ ৩ জুন বিশ্ব সাইকেল দিবস ও বাংলাদেশের মধ্যে সম্ভাবনা

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

কে এস এম আরিফুল ইসলাম, মৌলভীবাজার: আজ ৩ জুন বিশ্বের প্রায় দেশেই ভিন্ন ভিন্নভাবে পালিত হবে বিশ্ব সাইকেল দিবস। সমগ্র বিশ্বে জাতি, বর্ণ, লিঙ্গ, বয়স ভেদে উদযাপন করা হয়। “সাইকেল মানব সভ্যতার ক্রমবিকাশের এক প্রতীক। এটা সহনশীলতা, পারস্পরিক বোঝাবুঝি এবং শ্রদ্ধা বৃদ্ধি করার সঙ্গে সামাজিক সমাবেশ এবং সাংস্কৃতিক শান্তি প্রদান করে।”

এই পৃথিবীতে মানুষ সুস্থ থাকার জন্য কত ধরনের প্রয়াস করে বা ব্যায়াম করে থাকে। আর সেই মাত্রায় নতুনভাবে যুক্ত হলো সাইকেলিং বা সাইকেল চালানো। এটি এখন আর কেউ সখের জন্য বা প্রয়োজনের তাগিদে চালানো হয় না। বরং এটি এখন একটি জনপ্রিয় খেলায় পরিণত হয়েছে। তার সাথে সাথে বয়ে আনছে বিভিন্ন মহলের থেকে মেডেল এবং দেশের প্রতিযোগিতা সম্মান আর জাতীয়-আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলের প্রতিযোগিতায় দিচ্ছে প্রতিযোগীদের সুনাম-সুখ্যাতি এবং সম্মাননা।

যার ফলে দিন দিন এই সাইকেলিং এর প্রতি ঝুঁকছে বিভিন্ন বয়সের ও শ্রেণি-পেশার মানুষ এরা তবে এক্ষেত্রে তরুণদের অংশগ্রহণ টাই নজরে পড়ার মতন। আমার যদি ঠিকমতো আমাদের বাংলাদেশে ঐ সকল আগ্রহীদেরকে সুপ্রশিক্ষিত করা যায় তাহলে বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে অনেক সুনাম কুড়িয়ে আনতে পারবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। আমাদের দেশের এই নতুন সাইকেলিস্টদের জন্য দরকার রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে তাদের দিকে সুদৃষ্টি দেওয়া।

ইতিহাসের পাতায় আজকের দিনটা:

বিশ্ব সাইকেল দিবস প্রতিবছর জুন মাসের ৩ তারিখে সমগ্র বিশ্বজুড়ে পালন করা হয়। ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসে রাষ্ট্রসংঘর সাধারণ সভা ৩ জুন তারিখটিকে বিশ্ব সাইকেল দিবস হিসাবে উদযাপন করতে প্রস্তাব গ্রহণ করেছিলেন। রাষ্ট্রসংঘের প্রস্তাবে সাইকেলের দীর্ঘ জীবনকাল এবং বহু কাজে ব্যবহৃত হওয়ার প্রশংসা করা হয়েছিল। সঙ্গে প্রায় দুই শতক কাল এর সাধারণ, কম খরচ, বিশ্বাসযোগ্যতা, এবং পরিবেশের জন্য উপযুক্ত যান-বাহনের মাধ্যম হিসাবে সাইকেলের উল্লেখ করা হয়েছিল। সাইকেল ব্যবহারের সুফলের বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি করার জন্য মূলতঃ এই দিবস উদযাপন করা হয়।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রর অধ্যাপক লেসজেক সিবিলস্কি তার সমাজশাস্ত্রের শ্রেণিতে তৃণ-মূল পর্যায়ে বিশ্ব সাইকেল দিবসের রাষ্ট্রসংঘর স্বীকৃতির জন্য এক অভিযানের সূচনা করেছিলেন। পরে তার এই অভিযান তুর্কমেনিস্তানকে নিয়ে ৫৬টি দেশের সমর্থন লাভ করে। এর রাষ্ট্রসংঘ সরকারী বড় ও নীল রঙের লোগোটি আইজাক ফেলডে নির্মাণ করেছিলেন এবং অধ্যাপক জন ই. শানসন এর সঙ্গে থাকা এনিমেশন প্রস্তুত করেছিলেন।

এই লোগোতে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তের সাইকেল আরোহী দেখানো হয়েছে। সাইকেল মানবতাকে এগিয়ে নিয়ে যায়; এই হল এর মূল উদ্দেশ্য। বিশ্ব সাইকেল দিবস বর্তমান সুস্থ জীবন নির্বাহ পদ্ধতিকে প্রচারের জন্য অনুষ্ঠিত করা হয়। এর সঙ্গে ডায়েবেটিস ১ ও ২ জড়িত হয়ে আছে। তাছাড়া, সাইকেল চালানো স্বাস্থ্যর জন্য লাভকারক।

লেখক: কে এস এম আরিফুল ইসলাম, সাংবাদিক, কলামিস্ট ও সিনিয়র শিক্ষক, দারুল আজহার ইনস্টিটিউট, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার। বিডিটুডেস/এএনবি/ ০৩ জুন, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

17 + eighteen =