English Version

আবারও ব্রিটেনে ক্ষমতায় আসতে পারে জনসনের দল

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

বিডিটুডেস ডেস্ক: চলতি সপ্তাহেই ব্রিটেনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের কনজারভেটিভ পার্টি (টোরি) সুস্পষ্ট ব্যবধানে জয় পাবে বলে দেশটির প্রভাবশালী ইউগভ জরিপ সংস্থার এক জনমত জরিপে আভাস দেয়া হয়েছে। খবর বিবিসি ও এএফপির। অবশ্য দেশটিতে ১২ ডিসেম্বর নির্বাচনের কথা। প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন আশা করেছিলেন যে ব্রিটেনকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছাড়তে তিনি যে ফর্মুলা দিয়েছেন তার মাধ্যমে তিনি আবার ক্ষমতায় ফিরতে পারবেন।

বুধবার প্রকাশিত ইউগভের জরিপে বলা হয়েছে, যদি চলতি বৃহস্পতিবার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় তবে কনজারভেটিভরা ৬৮ আসনের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের জন্য প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টির চেয়ে ৪৪ আসনে এগিয়ে থাকবে। কনজারভেটিভ পার্টির নেতা জনসন ১২ ডিসেম্বরের ভোটে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে চান, এর মাধ্যমে তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সঙ্গে তার সমঝোতার চুক্তিটি ব্রিটিশ পার্লামেন্টে পাস করে ৩১ জানুয়ারির মধ্যে দেশকে ইউরোপের জোট থেকে বের করে আনতে এবং ব্রাসেলসের সঙ্গে একটি স্থায়ী বাণিজ্য চুক্তি করতে আগ্রহী।

এর আগে যুক্তরাজ্যের আসন্ন সাধারণ নির্বাচনের প্রচার চলাকালে প্রথম টেলিভিশন বিতর্কে ব্রেক্সিট নিয়ে একে অপরের সঙ্গে বিতর্কে জড়িয়েছিলেন বরিস জনসন ও বিরোধী লেবার নেতা জেরেমি করবিন। এই বিতর্কে ব্রেক্সিট ছাড়াও জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা, আস্থা ও নেতৃত্ব, স্কটল্যান্ডের ভবিষ্যত ও রাজপরিবার নিয়েও তারা একে অপরকে আক্রমণ করেন। ব্রেক্সিটকে সামনে রেখে এই নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে বিশ্ব। এরই মধ্যে চলছে প্রচার। কনজারভেটিভ ও লেবার পার্টির দুই শীর্ষ নেতা প্রথমবারের মতো যুক্তরাজ্যভিত্তিক সম্প্রচার মাধ্যম আইটিভির আয়োজনে অনুষ্ঠিত সরাসরি বিতর্কে অংশ নিয়েছিলেন।

সেখানে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ব্রেক্সিটকে জাতীয় দুর্যোগ আখ্যায়িত করে এর সমাপ্তি টানার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘লেবার দল শুধুই বিভক্তি সৃষ্টি করছে। তারা অচলাবস্থা সৃষ্টি করছে।’ জবাবে লেবার নেতা জেরেমি করবিন বলেছেন, ‘লেবার দল ক্ষমতায় থাকলে ব্রেক্সিট প্রক্রিয়ায় ব্রিটিশ জনগণকে তাদের শেষ কথা বলার সুযোগ দিত।’

বরিস জনসন বিজয়ী হতে চাইছেন, যাতে তিনি ব্রেক্সিট চুক্তি সম্পাদন করতে পারেন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে তিনি ব্রেক্সিট নিয়ে যে চুক্তিতে আটকে আছেন, তা তিনি আইনে পরিণত করতে চাইছেন। তবে তার এমন ইচ্ছার কড়া জবাব দিয়েছেন জেরেমি করবিন। তিনি বলেছেন, বরিস জনসনের করা চুক্তিকে তিনি ছিঁড়ে টুকরো টুকরো করে ফেলতেন এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে একটি নতুন চুক্তির বিষয়ে সমঝোতা করতেন। সূত্র: জনকণ্ঠ, বিডিটুডেস/এএনবি/ ৩০ নভেম্বর, ২০১৯

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

fifteen − 6 =