English Version

একাধিক শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা, মুদি দোকানদার আটক

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

অমর ডি কস্তা, নাটোর: নাটোরের বড়াইগ্রামের নগর ইউনিয়নের কুমারখালী গ্রামের এক মুদি দোকানদারের কাছে কোনো মেয়ে শিশু সওদা আনতে যেতে চায় না। মা-বাবা জোর করে পাঠাতে চাইলে শিশুরা কান্নাকাটি করে কিন্তু এর কারণ কেহই বলে না।

সর্বশেষ ওই দোকানে যেতে কেনো আপত্তি তার আসল রহস্য খুঁজে পান ওই দোকানদার কর্তৃক ধর্ষণের চেষ্টার শিকার ৬ বছরের শিশু কণ্যার মা। ওই শিশুটির মা গত সপ্তাহখানেক ধরে লক্ষ্য করছে তাদের মেয়েকে দোকানে কোনো কিছু কিনতে পাঠালে যেতে চাচ্ছে না। এমনকি দোকান পার হয়ে শিশুটির খালা বাড়ি। শিশুটি দোকানের সামনে দিয়ে খালা বাড়িতেও যেতে চাচ্ছে না।

পরে অনেক জিজ্ঞাসাবাদ করে জানতে পারে গত ৫ জুলাই বিকেলে খালা বাড়ি যাওয়ার সময় ওই দোকানদার শিশুটিকে দোকানে ডেকে নিয়ে দোকানের পেছনে নিজ বাড়িতে নিয়ে শরীরের আপত্তিকর জায়গা স্পর্শ করে ও ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। এ কথা জানাজানি হলে ও একই সাথে একই এলাকার ৫ বছর এবং ৭ বছরের অপর দুই কণ্যাশিশু একইভাবে ধর্ষণের চেষ্টার শিকার হয়েছে বলে সত্যতা তুলে ধরলে ক্ষুদ্ধ হয় এলাকাবাসী।

রবিবার রাতে বড়াইগ্রাম থানায় এ ব্যাপারে অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ সোমবার ভোরে আটক করে লম্পট দোকানদারকে। ওই দোকানদারের নাম আবুল কাশেম (৩২)। সে কুমারখালী গ্রামের আবুল হাশেনের ছেলে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আবু সাঈদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানায়, আবুল কাশেমের বাড়ি সংলগ্ন মুদি দোকান। এলাকার মেয়ে শিশুরা তার দোকানে সওদা আনতে গেলে নানা প্রলোভনে কাছে ডেকে নেয় এবং সুযোগ বুঝে যৌন হয়রানী ও ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। তার অপকর্মের কথা কাউকে বললে মেরে ফেলার ভয় দেখায় যার কারণে মেয়ে শিশুরা কাউকে কিছু বলতো না।

বড়াইগ্রাম থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) দিলিপ কুমার দাস জানান, থানায় ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে এক শিশুর মা বাদী হয়ে মামলা করেছে। ওই মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে তিন মাস আগেও এমন ঘটনার একাধিক অভিযোগ রয়েছে যা ওই সময় থানায় কেহ অভিযোগ করেনি। দুপুরে আবুল কাশেমকে নাটোর জেলা হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। বিডিটুডেস/এএনবি/ ১৩ জুলাই, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

fourteen − 4 =