English Version

একি শোনাল কর্ণফুলীর করোনা রোগী নুরুন্নবী!

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

মুহাম্মদ সেলিম হক: গায়ে জ্বর নেই, গলা ব্যথা নেই, নেই সর্দি, করোনার কোন উপসর্গ নেই। তবুও করোনার পজিটিভ। পুরাপুরি শতভাগ সুস্থ্যও। সে কর্ণফুলী উপজেলার বড়উঠান ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডে যুবলীগ কর্মী। নাম তার মোহাম্মদ নুরুন্নবী (৩০)।

করোনা পরীক্ষাও সে স্বেচ্ছায় করল। তার একজন পরিচিতজন কয়েকদিন যাবৎ জ্বরে ভুগছিল। তাকে নিয়ে আনোয়ারা স্বাস্থ্য কেন্দ্র গেলো পরীক্ষা করতে। সে সুবাদে সে ও করল, তার পজিটিভ আসলো, জ্বর আক্রান্ত ব্যক্তির আসলো নেগেটিভ! বিচিত্র করোনা। নমুনা দেওয়ার ৭দিন পর জানলো সে পজিটিভ।

মাঝখানে সব স্বাভাবিক ছিলো। কেউ থাকে বড় বড় চোখে দেখিনি, দূরে ও সরিয়ে দেয়নি। গতকাল রাতে পুলিশ আসলো তার বাড়িতে। সবাই চমকে গেলো। তাকে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। সাথে তার পরিবারকে ও। এটা কোন সমস্যা নয়।

আশেপাশে আমরা যারা আছি, আমরা তাদের সাথে কী রকম ব্যবহার করি এটাই বড়ই প্রশ্ন? গত কয়েকদিনে দু’একটটি ঘটনা মনে কালো দাগ তৈরি করল। দরজার ছিটকিনি আটকিয়ে বউ -বাচ্চারা মৃত্যু নিশ্চিত করলো এক হতভাগা স্বামীর। করোনা তখন ভয়ংকর যখন মানুষের আচরণ হিংস্র হয়। করোনা দূর্বল হয় তখন, যখন মানুষ মানবিক হয়।

নুরুন্নবীর সাথে আমার কথা হলো। সে খুবই আত্নাবিশ্বাসী। তার ভয় করোনা নয়, ভয় হলো আশপাশে মানুষ যেন তাকে অবহেলা না করে। বাঁকা চোখে না দেখে। করোনার বড় ঔষধ সে রপ্ত করেছে। সেটা হলো “মানসিক শক্তি” আশা করি আল্লাহ রহমতে সে সুস্থ্য হবে। প্রতিবেশীরা সবাই ভয়ে আতঙ্ক নয়, মানবিক হয়ে তার পাশে দাঁড়াবে।

মানবিক তরুণেরা এগিয়ে আসবেন। ইতোমধ্যে উপজেলা চেয়ারম্যান আর ইউপি চেয়ারম্যান তাকে ফোন নক করেছে। এটাতেও সে খুশি। যেন সে টগবগিয়ে সরস কন্ঠে বললো ত্রাণ নয়, তোমরা আমাদের পাশে থাকো ঠিক আগের মতো মানবিক হয়ে।

প্রসঙ্গত, কর্ণফুলীতে করোনায় আক্রান্ত রোগী গুলোকে চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন মেট্টোপলিটন থানা হিসেবে গন্য করে যে প্রতিবেদন প্রকাশ করলেন, তাতে এ পর্যন্ত উপজেলায় রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল-৫৬। তাতে যোগ হবে আজকে আক্রান্ত রোগী।

মুহাম্মদ সেলিম হক, লেখক, সাংবাদিক ও কলামিষ্ট

বিডিটুডেস/এএনবি/ ০৩ জুন, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

3 × four =