English Version

কিভাবে হাঁচিদাতার উত্তর দেওয়া উচিত?

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

বিডিটুডেস ডেস্ক: হান্নাদ (রহঃ) আলী রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ এক মুসলিমের উপর আরেক মুসলিমের হক ছয়টি নেকীর কাজ। সাক্ষাতের সময় সালাম করা, ডাক দিলে সাড়া দেওয়া, হাঁচি দিলে তাঁকে দু’আর মাধ্যমে উত্তর দেওয়া। অসুস্থ হলে তাঁর খোঁজ-খবর নেওয়া, মারা গেলে তার জানাযার পেছনে চলা এবং নিজের জন্য যা পছন্দ করে তার জন্যও তা পছন্দ করা। যঈফ

কুতায়বা (রহঃ) আবূ হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ এক মুমিনের প্রতি আরেক মুমিনের হক হল ছয়টিঃ অসুস্থ হলে তাকে দেখতে যাবে, মারা গেলে তার জানাযায় হাযির হবে। তাকে ডাক দিলে সে সাড়া দিবে। যখন সাক্ষাৎ হবে তখন তাকে সালাম করবে, হাঁচি দিলে তার জওয়াবে দু’আ করবে। উপস্থিত-অনুপস্থিত সকল সময় তার কল্যাণ কামনা করবে।

হুমায়দ ইবন মাসআদা (রহঃ) নাফি’ (রহঃ) থেকে বর্ণিত যে, এক ব্যক্তি ইবন উমর রাদিয়াল্লাহু আনহু-এর পাশে হাঁচি দিয়ে বললঃ আলহামদুলিল্লাহ্ ওয়াসসালামু আলা রাসূলিল্লাহ। ইবন উমর রাদিয়াল্লাহু আনহু বললেনঃ আমিও তো পড়ি আলহামদুলিল্লাহ্ ওয়াসসালামু আলা রাসূলিল্লাহ্। কিন্তু (হাঁচির বেলায়) রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের এরূপ শিক্ষা দেন নি। তিনি তো আমাদের এই ক্ষেত্রে ’‘আলহামদুলিল্লাহি আলা কুল্লি হাল’’ – বলতে শিক্ষা দিয়েছেন।

মুহাম্মাদ ইবন বাশশার (রহঃ) আবূ মূসা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত যে, ইয়াহূদীরা নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে হাঁচি দিয়ে আশা করত যে, তিনি জওয়াবে তাদের জন্য বলবেনঃ ইয়ারহামুকুমুল্লাহ্ – আল্লাহ্ তোমাদের রহম করুন। কিন্তু তিনি (তাদের উত্তরে) বলতেনঃ ইয়াহদীকুমুল্লাহ্ ওয়া ইউসলিহু বালাকুম – আল্লাহ্ তোমাদের হেদায়েত করুন এবং তোমাদের অবস্থা সংশোধন করে দিন। বিডিটুডেস/এএনবি/ ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

5 − 2 =