English Version

গৃহবধূকে মাইক্রো-বাসের ভেতর পালাক্রমে ধর্ষণ, আটক-৪

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

জি এম মিঠন, নওগাঁ: মুঠোফোনে পরিচয়ের সূত্রধরে এক গৃহবধূ (২০) কে কৌশলে ফাঁদে ফেলে বিয়ে করার কথা বলে কাজি অফিসে যাওয়ার নামে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে মাইক্রোবাসের ভেতরই ২ জন পালাক্রমে ধর্ষণ করেছে এবং অপর ২ জন সহযোগিতা করার অভিযোগে ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

ঘটনাটি ঘটেছে পঞ্চগড় সদর উপজেলায়। আটককৃত ৪ জনকে বুধবার বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ। আটককৃত ৪ জন হলেন, পঞ্চগড় জেলা সদর উপজেলার নিমনগর এলাকার শহীদুল ইসলাম (২৭) ও শিকারপুর এলাকার নুর আলম (২৫) সহ বোদার সোনাপাড়া এলাকার জাহিদুল ইসলাম (২৫) ও আমিরুল ইসলাম (৩০)।

থানা পুলিশ ও এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ওই গৃহবধূর (২০) সঙ্গে সম্প্রতি জাহিদুল ইসলামের মুঠোফোনে পরিচয় হয়। এরপর তাঁদের মাঝে মধ্যে কথা হতো। এরিমাঝে সোমবার দুপুরে ওই গৃহবধূর সাথে তার স্বামীর বিবাদ হয়। বিবাদের ঘটনাটি গৃহবধূ সন্ধ্যায় জাহিদুল ইসলামকে জানালে জাহিদুল এসময় কৌশলে ওই গৃহবধূকে বিয়ে করবেন বলে ময়দানদীঘি বাজারে আসতে বলেন।

জাহিদুলের কথায় সন্ধ্যার পর গৃহবধূ ময়দানদীঘি বিআরটিসির বাস কাউন্টারের সামনে পৌঁছালে সেখান থেকে তাঁকে আমিরুলের অটোরিকশায় তোলেন জাহিদুল ইসলাম। এরপর তাঁকে পঞ্চগড় রেলস্টেশনে নিয়ে যান এ সময় মোটরসাইকেল নিয়ে তাঁদের সঙ্গ দেন নুর আলম। রাতে স্টেশন এলাকায় একটি রেস্টুরেন্টে তাঁরা খাবার খাওয়ার সময় শহীদুলকে ফোন করে মাইক্রোবাস নিয়ে আসতে বলেন জাহিদুল ইসলাম।

এক পর্যায়ে বিয়ে করতে কাজি অফিসে যাওয়ার কথা বলে ওই গৃহবধূকে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে প্রথমে মালাদাম বাজারে যান এবং রাত গভীর হলে মাইক্রোবাসটি জেলা শহরের মৈত্রী ফিলিং স্টেশনের সামনে নিয়ে দার করান। সেখানে মাইক্রোবাসের ভেতরই ওই গৃহবধূকে জাহিদুল ও শহীদুল পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। আর ধর্ষণের সময় আমিরুল ও নুর আলম বাইরে পাহারা দেয়।

ধর্ষণ শেষে মঙ্গলবার ভোরে জাহিদুল ইসলাম একটি মোটর সাইকেল যোগে ওই গৃহবধূকে বোদা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এনে নামিয়ে দিয়ে গেলে সেখানকার একজন ব্যক্তি ওই গৃহবধূর স্বামীকে ফোন করেন। খবর পেয়ে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে গৃহবধূর স্বামী সেখানে গিয়ে ওই গৃহবধূকে উদ্ধার করে বাড়ি নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার ওই গৃহবধূ রাতেই বোদা থানায় ২ জন ধর্ষক ও ২ জন সহযোগী মোট ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। এরপরই পুলিশ প্রথমে জাহিদুল ইসলামকে বাড়ি থেকে আটক করেন। তাঁর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী অপর ৩ জনকেও আটক করে মোট ৪ জনকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করেন পুলিশ। এছাড়া ধর্ষণের সময় ব্যবহৃত মাইক্রোবাসটি জেলা শহরের সি-অ্যান্ডবি মোড় নামক স্থান থেকে জব্দ করেছে পুলিশ।

সত্যতা নিশ্চিত করে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও বোদা থানার ওসি (তদন্ত) আবু সায়েম মিয়া জানান, আটককৃত ৪ জনকেই বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। ওই গৃহবধূর স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও সম্পূর্ণ করা হয়েছে। বিডিটুডেস/এএনবি/ ২৯ অক্টোবর, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

10 − 10 =