English Version

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে নওগাঁয় আমের ব্যাপক ক্ষতি

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

জি এম মিঠন, নওগাঁ: ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাব সারা নওগাঁ জেলা সহ সীমান্তবর্তী সাপাহার ও পোরশা উপজেলার বিশেষকরে মৌসুমী ফল আমের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বুধবার দিবাগত সারা রাত ধরে আম্পানের তাণ্ডবে নওগাঁর সাপাহার ও পোরশা উপজেলায় আম বাগানগুলিতে আমচাষীদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

এই ঝড়ো হাওয়া কখনও দমকা হাওয়ায় রূপ নিয়ে বাতাসের গতিবেগকে বাড়িয়ে দিচ্ছে। এর মধ্যে থেমে থেমে প্রচণ্ড ঝড়ের সাথে বৃষ্টিপাতও হয়েছে প্রচুর। নওগাঁ জেলার বদলগাছী উপজেলায় অবস্থিত আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে, রাতে যে ঝড় হাওয়ার সাথে বৃষ্টিপাত হয়েছে তা ঘূর্ণিঝড় আম্পানেরই প্রভাব এর কারণেই হয়েছে।

এই ঘূর্ণিঝড় বা বাতাসে জেলার প্রতিটি উপজেলায় আম ও লিচু ফলের ক্ষতি হয়েছে তবে, সাপাহার ও পোরশা উপজেলায় বাগানে বাগানে প্রচুর আম ঝরে পড়ায় ভোর হতে প্রতিটি বাগানে সাধারণ মানুষের আম কুড়ানোর ধুম পড়েছে।

সাপাহার উপজেলার আমচাষী তছলিম উদ্দীন, মুমিনুল হক, দেলোয়ার হোসেন, শহজাহান আলীসহ অনেক আমচাষী জানান যে, আজ থেকে প্রায় ১৫দিন পূর্বে কালবৈশাখীর তাণ্ডবে আমাদের এলাকায় আমের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছিল। সে ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই ঘূর্ণিঝড় আম্পান আবারো এই এলাকায় আঘাত হানল। আম্পানের এই আঘাতে প্রতিটি বাগানে প্রায় ৩০ শতাংশ আম মাটিতে ঝড়ে পড়েছে।

এবারের ঝড়ে গাছ হতে সরেস বড় সাইজের আমগুলিই ঝরে গেছে। বর্তমানে বাগানে এখন শতভাগের মাত্র ৪০ ভাগের মত আম রয়েছে। আম পরিপক্ক হওয়া পর্যন্ত আবহাওয়া আমচাষীদের অনুকুলে থাকলে এই ৪০ ভাগ আমই চাষীদের ভাগ্য ফেরাতে পারে বলে আমচাষীদের বিশ্বাস। তবে বৈশ্বিক করোনার করণে যদি আমের বাজার মন্দা হয় তা হলে আমচাষীরা আবার ক্ষতির সম্মুখীন হবে বলে তারা শঙ্কিত।

আম্পানের জেরে বৃহস্পতিবার সারা দিন সূর্যের আলোর কোনো দেখা মেলেনি সারা দিন থেমে থেমে কখনও অঝর ধারায় আবার কখনও গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিপাত অব্যহত রয়েছে। আম্পানের প্রভাবে এবারে সাপাহারে মাত্র ৩ ভাগ আমের ক্ষতি হয়েছে বলে উপজেলা কৃষি অফিস জানিয়েছেন। এছাড়াও জেলার প্রতিটি উপজেলায় বিশেষ করে মৌসুমী ফল আম ও লিচুর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বিডিটুডেস/এএনবি/ ২১ মে, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

twenty + 2 =