English Version

চৌগাছায় ৫ বাড়ি লকডাউন, পরিবারের সকলেই হোম কোয়ারেন্টাইনে

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

আব্দুল আলীম, চৌগাছা (যশোর): যশোরের চৌগাছায় রেনুকা ওরফে রিয়া (১৮) নামে এক মহিলার করোনা ভাইরাস সন্দেহে হাসপাতালে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। একই কারণে সে যে বাড়িতে ভাড়া থাকতো সেই বাড়ি পাশের আরো দুটি বাড়ি, তার বান্ধবীর বাড়িসহ মোট ৫টি বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে।

রবিবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম, পৌর মেয়র নূর উদ্দিন আল মামুন হিমেল ও এসিল্যান্ড নারায়ণ চন্দ্র পাল পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের তিনটি বাড়ি লকডাউন করেন। পরে ওই নারীর স্বামী পরিচয় দানকারী উপজেলার হাকিমপুর গ্রামের দাউদ হোসেন মিস্ত্রির ছেলে মোমিনুর রহমানের বাড়ি এবং যে বান্ধবী তাকে প্রাথমিক পর্যায়ে উপজেলা হাসপাতালে নিয়েছিলেন তার বাড়ি ও পাশের আরো একটি বাড়ি লকডাউন করা হয়। মোমিনুর তিন বছর আগে ওমান থেকে দেশে ফিরেছেন।

এর আগে ওই নারীকে করোনা ভাইরাসের লক্ষণ নিয়ে চৌগাছা উপজেলা মডেল হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখান থেকে করোনা সন্দেহে পরীক্ষার জন্য নমুনা ঢাকায় পাঠানো হয় এবং ওই নারীকে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়। এরপর রবিবার দুপুর আড়াইটায় শহরের কারিগরপাড়ায় ওই নারীর ভাড়াটিয়া দ্বিতল বাড়ি এবং পাশ্ববর্তী আরো দুটি বাড়ি তালা মেরে লকডাউন করে দেয়া হয়।

পরে হাকিমপুরে অবস্থিত ওই নারীর স্বামী পরিচয়দানকারী মোমিনুরের এবং তার অন্তরঙ্গ বান্ধবী খুশির বাড়িও লকডাউন করে দেয়া হয়। লকডাউনকৃত বাড়িগুলিতে অবস্থানরত পরিবারের সদস্যদের হোম ‘কোয়ারেটাইনে’ রাখা হয়েছে।

চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. লুৎফুন্নাহার বলেন ওই নারীর শরীরে করোনা ভাইরাসের লক্ষণ পরিলক্ষিত হওয়ায় নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় আইডিসিআরএ পাঠানো হয়েছে এবং তাকে যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সেখানে তাকে ‘আইসোলেশনে’ রাখা হয়েছে বলে ২৫০ শয্যা হাসপাতাল সূত্র নিশ্চিত করেছে।

চৌগাছা পৌর মেয়র নূর উদ্দিন আল মামুন হিমেল বলেন, ওই বাড়িগুলো লকডাউন করে দেয়া হয়েছে। বাসিন্দাদের বাইরে বের না হওয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম লকডাউনের বিষয় নিশ্চিত করেছেন।

চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব বলেন, ওই নারীর ভাড়া নেয়া বাড়ি, স্বামী পরিচয় দেওয়া মোমিনের গ্রামের বাড়িসহ ৫টি বাড়ি লকডাউন করে দেয়া হয়েছে। ভাড়াটিয়া বাড়ির মালিক জানান, ওই নারী নিজেকে রিয়া এবং মোমিনকে স্বামী পরিচয় দিয়ে মার্চ মাসের শুরুতে ভাড়ায় ওঠে। তবে চৌগাছা হাসপাতালে তিনি নিজেকে রেনুকা পিতা ওয়াজেদ আলী পরিচয় দিয়ে ভর্তি হন।

খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, ওই নারীর স্বামীর নাম আবুল বাশার। তিনি রংপুর জেলার একটি উপজেলার বাসিন্দা। পূর্বের স্বামীর সাথে তার ডিভোর্স হয়ে গেছে। চৌগাছায় আসার আগে সুন্দরী ওই নারীকে কোটচাঁদপুরে সফির বাড়িতে ভাড়া রেখেছিলেন এই মোমিন।

সেখানে স্থানীয়রা অনৈতিক কাজের অভিযোগে মারপিট করে তাকে তাড়িয়ে দিয়েছিল বলেই জানিয়েছেন হাকিমপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের মেম্বর সোহরাব হোসেন টাইগার। মোমিন ব্রোকার হিসেবে ওই নারীকে দিয়ে দেহ ব্যবসা করাতো। ভাড়াবাসার আসেপাশের লোকজন জানিয়েছেন ওই নারীর কাছে বাইরের লোকজনের বেশ অসা-যাওয়া ছিল। বিডিটুডেস/এএনবি/ ২৯ মার্চ, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

3 + 2 =