English Version

নওগাঁয় কমতে শুরু করেছে সবজির দাম, মাত্র ৩ টাকা কেজি মুলা..!

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

জি এম মিঠন, নওগাঁ: নওগাঁয় কমতে শুরু করেছে শীত কালীন বিভিন্ন সবজির দাম। গত ১৫ দিনের ব্যবধানে ৪০ টাকা কেজির মুলা এখন বিক্রি করা মাত্র হচ্ছে ৩ টাকা কেজি দরে। মুলা’র আমদানী বেড়ে যাওয়ায় দাম কম বলে জানিয়েছেন কৃষকরা। এতে ক্রেতারা খুশি হলেও কৃষকেরা হতাশায় ভুগছেন।

নওগাঁর আত্রাই উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন হাট-বাজার ঘুরে দেখা গেছে এমন দৃশ্য। এসব বাজারে প্রতি কেজি মুলা ৩ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা হচ্ছে। আবার পাইকারী বাজারে মুলা এখন ২ টাকা কেজি। এতে করে পরিবহন খরচও উঠছে মুলা চাষী কৃষকের।

বিক্রেতারা বলছেন, ১৫ দিন আগেও ৪০ টাকা কেজি দরে মুলা বিক্রি হয়েছে। শীতকালীন সবজি হিসেবে মুলার চাহিদা থাকায় দামও বেশি ছিল। এখন বাজারে সকল সবজির পাশাপাশি মুলার যোগানও বেড়েছে। ফলে মুলার দাম কমে ৩ টাকা কেজিতে নেমেছে।

কৃষকরা বলছেন, শুরুতে দাম ভালো পেলেও হঠাৎ দাম কমে যাওয়ায় ক্ষতির আশংকা রয়েছে। কয়েক দফা বন্যার কারণে এমনিতে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে পড়েছে। তাই এবার সবজি উৎপাদনে খরচ আগের তুলনায় অনেক বেশি।

উপজেলার সাহাগোলা ইউনিয়নের মাগুড়াপাড়া গ্রামের কৃষক লোকমান হোসেন বলেন, এবার ২০ শতক জমিতে মুলা চাষ করেছি। ফলনও ভালো হয়েছে। তবে বাজারে দাম কমে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছি। এখন উৎপাদন খরচ ওঠা নিয়েই চিন্তায় রয়েছি।

ভবানীপুর বাজারের কাঁচামাল ব্যবসায়ী নয়ন বলেন, বাজারে এখন সব সবজি পাওয়া যাচ্ছে। অন্যান্য সবজির দাম বেশি হলেও মুলার দাম কম। রাইপুর গ্রামের বাসিন্দা মকছেদ আলী বলেন, বাজারে সব সবজি পাওয়া গেলেও মুলার দাম কম। তবে আলু দাম বেড়েছে। আলু এখন ৪০/৪৫ সহ নতুন আলু ৭০/৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কে এম কাউছার জানান, এ বছর উপজেলায় এক হাজার ২০০ হেক্টর জমিতে রবি শস্য আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। এর মধ্যে ৬শ হেক্টর জমিতে সবজি চাষ হয়েছে। এককভাবে মুলার চাষ হয়েছে প্রায় ৩০ হেক্টর জমিতে। তবে উৎপাদন ও আমদানী বেড়ে যাওয়ায় মুলার দাম কমেছে। বিডিটুডেস/এএনবি/ ০২ ডিসেম্বর, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

14 + seven =