English Version

নওগাঁয় বাড়ছে চালের দাম, এক সপ্তাহে প্রতি কেজিতে বেড়েছে ২ থেকে ৪ টাকা

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

জি, এম মিঠন, নওগাঁ: বাজারে ধানের মূল্য তুলনামূলকভাবে কম হলেও নওগাঁয় এক সপ্তাহর মধ্যেই ধাপে ধাপেই বেড়েই চলেছে চালের মূল্য। মাত্র এক সপ্তাহর ব্যবধানেই প্রকার ভেদে প্রতি কেজিতে চালের মূল্য বেড়েছে ২ থেকে ৩/৪ টাকা করে। হঠাৎ করে চালের মূল্য বাড়লে ও নওগাঁর হাট-বাজার গুলোতে ধানের মূল্য বাড়েনি বলেই কৃষকদের অভিযোগ। এক সপ্তাহ প্রতি (৫০) কেজির চালের বস্তার মূল্য বেড়েছে ১৫০ টাকা থেকে ২০০ টাকা করে।

চালের মূল্য বৃদ্ধির সত্যতা নিশ্চিত করে নওগাঁর নওহাটামোড় বাজারের মেসার্স-মামুন ও মেসার্স -রনি চাল-কলের মালিক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলহাজ্ব মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, মাত্র এক সপ্তাহ পূর্বেই আমরা প্রতি (৫০) কেজির (জিরা শাইল) চাউল এর বস্তা বিক্রি করেছি ১,৮০০/= দরে। কিন্তুু হঠাৎ করেই বাজারে সেই চালের মূল্য বেড়ে বর্তমানে (৫০) কেজির প্রতি বস্তা (জিরা শাইল) চাউল বিক্রি হচ্ছে ২০৫০/= টাকা থেকে ২১০০/= টাকা দরে।

জানিয়ে তিনি আরো বলেন, শুধু জিরা শাইল নয় নওগাঁর বাজারে পারিজা ও বি-২৮ চালের মূল্য ও প্রতি কেজিতে ২ টাকা করে বৃদ্ধি পেয়েছে। অপরদিকে, আজ (১৪ নভেম্বর) বৃহস্পতিবার নওগাঁর চকগৌরীহাটে গিয়ে ধান বিক্রি করতে আসা কৃষকদের সাথে আলাপ করে ও সরজমিনে যা দেখা গেল তা সম্পূর্ণই উল্টো। যখন বাজারে চালের মূল্যে বৃদ্ধি পাচ্ছে ঠিক তখনই ধানের মূল্য কমে যাচ্ছে বলেই অভিযোগ কৃষকদের।

এহাটে ধান বিক্রি করতে আসা ফয়জুল নামের এক বৃদ্ধ কৃষক জানান, আমি নতুন চলতি মৌসুমের স্বর্ণা-৫ জাতের ৮ মন ধান এনে প্রতিমন ৬৫০/= দরে বিক্রি করেছি বাবা। একই সময় আরো বেশ কয়েকজন কৃষক বলেন, আজ নিচে ৬২০ থেকে শুরু করে উপর ৬৮০ টাকা পর্যন্ত স্বর্ণা-৫ জাতের ধান কেনাবেচা হয়েছে এহাটে।

এছাড়া ও বিভিন্ন জাতের প্রকার ভেদে ধান কেনাবেচা হচ্ছে জানিয়ে অভিযোগ করে কৃষকরা বলেন, বাজারে সবজি ও চালের মূল্য বেড়েই চলেছে আর মাথার ঘাম পায়ে ফেলে ফলানো সোনালী ফসল ধান চাষ করে আমরা বিগত কয়েক বছর ধরে শুধু লোকসান করেই আসছি। একই সাথে বাজারে দ্রুত ধানের বাজার মূল্য বৃদ্ধি করে সাধারণ কৃষকদের রক্ষার জন্য মাননীয় খাদ্যমন্ত্রী ও দ্বায়িত্বরত কর্মকর্তাদের ধানের হাট-বাজার মনিটরের মাধ্যমে যাতে সাধারণ কৃষক নায্য মূল্য পান সে ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়ার দাবী ও জানিয়েছেন সাধারণ কৃষকরা। বিডিটুডেস/এএনবি/ ১৪ নভেম্বর, ২০১৯

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

7 − two =