English Version

নওগাঁয় ১০ নারী বীরঙ্গনাকে সংবর্ধনা দিলেন জেলা পুলিশ

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

জি এম মিঠন, নওগাঁ: মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশের নারীরা পাকিস্তান হানাদার বাহিনী ও তাদের এ দেশীয় দোসরদের দ্বারা নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। প্রাণে বাঁচলেও হারিয়েছেন সভ্রম। তারাই মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয় দিয়েছেন ও গুপ্তচরের কাজ করেছেন। অথচ তাদের এই অবদানের কথা বহুলাংশে অশ্রুতই রয়ে গেছে। (১৯ জানুয়ারী) রবিবার নওগাঁ জেলা পুলিশ জেলার রাণীনগর উপজেলার আতাইকুলা গ্রামের এমন ১০ নারী মুক্তিযোদ্ধাকে (বীরঙ্গনাকে) সংবর্ধনা দিয়েছে।

এই ১০ জন নারী মুক্তিযোদ্ধার মধ্যে বর্তমানে জীবিত ৬ জন হলেন সুষমা পাল, কালী বালা, মায়া রাণী সূত্রধর, রাশমনি সূত্রধর, সন্ধ্যা রাণী পাল ও গীতা রাণী পাল। নারী মুক্তিযোদ্ধা বাণী রাণী পাল, ক্ষান্তা রাণী পাল, রেনু বালা ও সুষমা সূত্রধর বেঁচে নেই। গত বছর ৪ ডিসেম্বর মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় গেজেট প্রকাশ করে ওই ১০ নারীকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। ওই ১০ নারী মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারকে সংবর্ধনা প্রদান উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রাণীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জহুরুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে নারী মুক্তিযোদ্ধাদের ফুল ও উপহার দিয়ে সংবর্ধনা জানান পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান মিয়া বিপিএম। মৃত চার নারী মুক্তিযোদ্ধার পক্ষে তাঁদের স্বজনেরা উপহার গ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা পুলিশ সুপার (ক্রাইম) রাকিবুল আকতার, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ রাণীনগর উপজেলা শাখার কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার এ্যাড. ইসমাইল হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফ দুলু, মুক্তিযোদ্ধা প্রদ্যুৎ কুমার পাল প্রমুখ।

স্বাস্থ্যের খবর জানুন

পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান মিয়া বিপিএম বলেন, ‘দেশের জন্য জীবন বাজি রেখে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছেন এবং নিজেদের মহামূল্যবান সভ্রম হারিয়েছেন এমন অনেক নারী দীর্ঘদিন লোকচক্ষুর অন্তরালে থেকে সামাজিক নিগ্রহ সয়ে জীবনটাকে বয়ে বেড়াচ্ছিলেন। অনেকেই জানতেন না বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে তাদের অবদানের কথা। বর্তমান সরকার বীর মায়েদের সম্মান দিয়েছে। তাদেরকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। এই মায়েদের সংবর্ধনা জানাতে পেরে আমরা নিজেরাই সম্মানিত হলাম। বিডিটুডেস/এএনবি/ ১৯ জানুয়ারি, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

9 − seven =