English Version

নারায়ণগঞ্জের দুইটি এলাকায় ৫টি বহুতল ভবন সিলগালা

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

বুলবুল আহমেদ সোহেল, নারায়গঞ্জ: শিল্পাঞ্চল নারায়ণগঞ্জে এক সময় ভবনের সংখ্যা কম থাকলেও অর্থনৈতিক উন্নয়নের ছোঁয়ায় নগরের সবকটি বাড়িই এখন বহুতল ভবন। আর ভবন নির্মাণের অনিয়মে কঠিন কোনো আইন প্রয়োগের ব্যাবস্থা না থাকায় একের পর এক অপরিকল্পিত ভবন গড়ে উঠছে। নগরের বাবুরাইল এলাকায় ভবন ধসে ঘটেছে হতাহতের ঘটনা। চলতি সপ্তাহেই নগরের খানপুর এলাকায় একটি ৫ তলা ভবন আরো দুটি ভবনের ওপর হেলে পড়েছে। আর এসব ভবন এখন নগরবাসীর আতঙ্ক।

নারায়ণগঞ্জে প্রায়ই ঘটছে ভবন হেলে পড়পর ঘটনা। সর্বশেষ রোববার বিকেলে বাবুরাইল এলাকায় চার তলা ভবন ধসে মৃত্যু হয়েছে দুই শিশুর। এর আগে শুক্রবার রাতে নগরের খানপুর এলাকায় চারতলা মন্টু ভবন হেলে পড়ে ভূইয়া ভবনের ওপর। সে সময় এলাকাবাসি ৯৯৯ কল দিলে তাৎক্ষনিক পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও রাজউক কর্মকর্তারা এসে পাশাপাশি তিনটি ভবন বসবাসের অনুপোযোগী ঘোষনা করে সিলগালা করে দেন।

এছাড়াও বাবুরাইল এলাকায় ভবন ধসের ঘটনার পর আশেপাশের আরো তিনটি ভবন বসবাসের অনুপোযোগী ঘোষনা করে সিলগালা করে দেয়া হয়েছে। ভবনগুলো থেকে সড়িয়ে দেয়া হয়েছে বসবাসরত লোকজনকে। অভিযোগ রয়েছে অনেকেই বিল্ডিং কোড না মেনে এবং অনেক ক্ষেত্রে অনুমোদিত নকশার বাহিরে নির্মাণ করা হচ্ছে একের পর এক ভবন।

বাবুরাইল এলাকার ভবন ধসের ঘটনা নিয়ে স্থানীয়রা জানালেন কোনো ধরনের পাইলিং না করে সরু খামের ওপর একেক করে চার তলা ভবনটি গড়ে তোলেন ওই বাড়ির মালিক। স্থানীয়রা এ ব্যাপারে নিষেধ করলেও তারা তা না মেনে চারতলার কাজ শুরু করার পরই ভবনটি ধ্বসে পড়ে।

স্থানীয়রা জানান, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঠিক তদারকি না থাকায় নারায়ণগঞ্জে বেশির ভাগ ভবনই গড়ে উঠছে অনুমোদিত নকশার বাইরে গিয়ে। কোনো ধরনের অনুমোদন না নিয়েও অনেক অপরিকল্পিত ভবন গড়ে উঠেছে এখানে। অপরদিকে খানপুর এলাকায় চার তলা ভবন হেলে পড়ায় এখানকার বাসিন্দারাও রয়েছে আতঙ্কে। যে কোনো সময় ভনটি ধসে পড়লে ঘটতে পারে বড় ধরনের হতাহতের ঘটনা।

স্থানীয় সচেতন মহল দাবি করেছেন, নানা অনিয়মের মধ্যেই নারায়ণগঞ্জে একের পর এক ভবন গড়ে উঠেছে। ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলো চিহ্নিত করে সময় মতো ব্যাবস্থা গ্রহণ না করলে বড় ধরনের কোনো ক্ষয় ক্ষতি হলে তার দায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকেই নিতে হবে। এসব ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন জানান, দুটি ঘটনায় দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ভবনগুলো সিলগালা করে দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রশানের পাশাপাশি জনগণকে তার আইন মেনে চলতে হবে। নারায়ণগঞ্জ বাসির দাবি সময় মতো সঠিক সিদ্ধান্ত না নিলে আরো বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হতে পারে। এর জন্য প্রয়োজন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঠিক তদারকি। বিডিটুডেস/এএনবি/ ০৬ নভেম্বর, ২০১৯

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

eleven − ten =