English Version

নারী-পুরুষের সাজ-সজ্জা ও ইসলামি বিধি নিষিধে

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

বিডিটুডেস ডেস্ক: নারী-পুরুষ সকলের জন্য পান করা ইত্যাদি কাজে স্বর্ণ ও রৌপ্য পাত্র ব্যবহার করা হারাম -ইয়াহইয়া ইবনু ইয়াহইয়া (রহঃ) … নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর স্ত্রী উম্মে সালামা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ যে ব্যক্তি রৌপ্য পাত্রে পান করে, সে তার পেটে জাহান্নামের আগুন ঢুকায় মাত্র।

নারী-পুরুষ সকলের জন্য পান করা ইত্যাদি কাজে স্বর্ণ ও রৌপ্য পাত্র ব্যবহার করা হারাম – কুতায়বা, মুহাম্মাদ ইবনু রুমহ, আলী ইবনু হুজর সা’দী, ইবনু নুমায়র, মুহাম্মাদ ইবনু মুসান্না, আবূ বকর ইবনু আবূ শায়বা, ওলীদ ইবনু শুজা , মুহাম্মাদ ইবনু আবূ বকর মুকাদ্দামী ও শায়বান ইবনু ফাররুখ (রহঃ) তাঁরা সকলে বিভিন্ন সনদে নাফি (রহঃ) থেকে মালিক ইবনু আনাস (রাঃ) এর সনদে বর্ণিত হাদীসের অনুরূপ রিওয়ায়াত করেছেন। তবে উবায়দুল্লাহ (রহঃ) এর সূত্রে আলী ইবনু মুসহির (রহঃ) বর্ণিত হাদীসে অতিরিক্ত আছে, যে ব্যক্তি রৌপ্য ও স্বর্ণ পাত্রে আহার কিংবা পান করবে। ইবনু মুসহির (রহঃ) এর হাদীস ছাড়া অন্য কারো হাদীসে আহার করা ও স্বর্ণ পাত্রের কথা উল্লেখ নেই।

নারী-পুরুষ সকলের জন্য পান করা ইত্যাদি কাজে স্বর্ণ ও রৌপ্য পাত্র ব্যবহার করা হারাম -যায়দ ইবনু ইয়াযীদ আবূ মা’আন রাককাশী (রহঃ) … উামু সালামা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ যে ব্যক্তি স্বর্ণ বা রৌপ্যপাত্রে পান করে সে কেবল তার উদরে জাহান্নামের আগুন ঢুকায়।

হেলথ টিপস পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

নারী ও পুরুষের জন্য সোনা-রূপার পাত্র, আর পুরুষের জন্য সোনার আংটি ও রেশমজাত কাপড় ব্যবহার করা হারাম এবং স্ত্রীলোকের জন্য এগুলো ব্যবহার করা মুবাহ। সোনা-রূপা ও রেশমের অনধিক চার আঙ্গুল পরিমাণ নকলী (পাড় ও আচল) অনুরূপ কিছু পুরুষের জন্য মুবাহ

ইয়াহইয়া ইবনু ইয়াইয়া আত তামীমী ও আহমাদ ইবনু আবদুল্লাহ ইবনু ইউনুস (রহঃ) … মুআবিয়া ইবনু সুওয়াদ ইবনু মুকাররিন (রহঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি বারা ইবনু আযিব (রাঃ) এর কাছে গিয়েছিলাম। তখন আমি তাঁকে বলতে শুনেছি যে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের সাতটি জিনিসের নির্দেশ দিয়েছেন এবং সাতটি জিনিস থেকে নিষেধ করেছেন। আমাদের রোগীর দেখাশোনা করা, জানাযার সাথে চলা, হাঁচিদাতার জবাব দেয়া, কসম পূর্ণ করা অথবা বলেছেন কসমকারীর কসম পূর্ণ করা, মাযলুমের সাহায্য করা, দাওয়াতকারীর আহবানে (দাওয়াতে) সাড়া দেয়া এবং সালামের বিস্তার করার আদেশ দিয়েছেন। আর তিনি আমাদেরকে স্বর্ণের আংটি ব্যবহার করা, রৌপ্য পাত্রে পান করা, মায়াসির (এক জাতীয় নরম রেশমী কাপড়) ও কাসসী (রেশম মিশ্রিত এক জাতীয় মিসরীয় কাপড়) ব্যবহার করা এবং মিহি রেশমী কাপড়, মোটা রেশমী বস্ত্র ও দীবা (খাঁটি রেশমী কাপড়) পরিধান করতে নিষেধ করেছেন। বিডিটুডেস/আরএ/২৭ মে, ২০১৯

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

3 + one =