English Version

রাঙ্গামাটিতে ঐতিহাসিক পার্বত্য চুক্তি’র ২২তম বর্ষপূর্তি পালিত

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

সুপ্রিয় চাকমা (শুভ) রাঙ্গামাটি: ‘পার্বত্য চুক্তি বিরোধী ও জুম্মস্বার্থ পরিপন্থী সকল কার্যক্রম প্রতিরোধ করুন, পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নে অধিকতর আন্দোলন সংগঠিত করুন’ এ স্লোগানকে সামনে রেখে রাঙ্গামাটিতে ঐতিহাসিক পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি’র ২২তম বর্ষপূর্তি পালিত হয়েছে। সোমবার (২রা ডিসেম্বর) সকালে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি রাঙ্গামাটি জেলা কমিটির আয়োজনে কুমার সুমিত রায় জিমনেসিয়াম প্রাঙ্গনে গণসমাবেশে পালিত হয় নানান কর্মসূচী।

সকাল থেকে শুরু হয় রণসঙ্গীত। গণসমাবেশে দূর-দূরান্ত থেকে অংশগ্রহণ করে হাজারো জনতা। ব্যানার, প্লে-কার্ড হাতে নিয়ে রাঙ্গামাটির প্রধান মহাসড়কে শোভযাত্রা করা হয়। দাবি জানানো হয়, পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি’র মৌলিক ধারাগুলো বাস্তবায়নসহ আদিবাসী হিসেবে সাংবিধানিক সীকৃতি দেওয়া।

গণসমাবেশে শ্যামরতন চাকমার সভাপতিত্ত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সহ-সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম অঞ্চলের কমিনিউস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক অশোক সাহা। আরো উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক মাঈনুল ইসলাম, এএনলারমা মেমোরীয়াল ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক বিজয় কেতন চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সভাপতি জুয়েল চাকমা,নারী নেত্রী আশিকা চাকমাসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় ঊষাতন তালুকদার বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির ৪৮ ধারা বাস্তবায়িত হয়েছে। কিন্তু মানুষগুলো অশিক্ষিত হলেও বেকুব নয়। বুঝে-শুনে বলাটাও অজ্ঞানতার প্রকাশ করা। চুক্তি কেন করা হয়েছে..! কেন চুক্তি করতে হয়েছে..! সেটা প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে চুক্তি করা হয়েছে।পার্বত্য চুক্তি করা হয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রামের যে অশান্ত পরিবেশ,যে অনিয়ম, বিভিন্ন অভিযোগ এসব বিষয়গুলো আমলে নিয়ে সরকারের সাথে চুক্তি হয়েছিলো। চুক্তি করার ফলে আইন তৈরি হয়েছে। চুক্তির ফলে জেলা পরিষদ ও আঞ্চলিক পরিষদ গঠন হয়েছে। আইন হলে কি হবে। আইন অনুযায়ী জেলা পরিষদ ও আঞ্চলিক পরিষদে কোনো প্রকার ক্ষমতা হস্তান্তর করা হয়নি। লোভ দেখানো চুক্তি হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বিদেশ সফর থেকে ফিরে আসলে সাধারণ প্রশাসন, আইন শৃঙ্খলা, গরীব-স্থানীয়, বন ও পরিবেশ ভূ-নিরাপত্তার যে কোনো একটা এ মাসের মধ্যে যেকোনো একটা বিষয় হস্তান্তর করবেন আমরা দেখতে চাই। সেটা অফিস আদেশ দিয়ে করতে হবে। কেউ নিরাশ হবেন না। নিজ অধিকার আদায়ের জন্য চুক্তি করা হয়েছে সেহেতু পার্বত্য চুক্তি করেছি এবং তা বাস্তবায়ন করে ছাড়বো। তিনি আরো বলেন, অনেকে মুখে মুখে বলছে খাগড়াছড়ির পুরো জেলা দখল হয়ে গেছে। রাঙ্গামাটির লংগদু,বরকল দখল হয়ে গেছে। জনসংহতি সমিতি তো শেষ না তো শুরু তা আমি বলবো না। আপনারাই নির্ধারণ করবেন। এখানে শেষ কিছু নেই। সেটা হলো চেতনা। চেতনার মৃত্যু নেই।সত্য-ন্যায়ের একটা যুক্তি আছে। সে অনুসারে আপনাদের নির্ধারণ করতে হবে। শিক্ষিত-অশিক্ষিত সেসব বিষয় জনগণ বোঝে।

অন্যদিকে পার্বত্য চুক্তির ২২তম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের বর্ণাঢ্য আয়োজন রাঙ্গামাটি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনিষ্টিটিউট প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার এই পার্বত্য শান্তি চুক্তি করেছে এ সরকারই তার অধিকাংশই বাস্তবায়ন করেছে। সরকার ভূমি কমিশন আইন পাশ করেছে। শান্তিচুক্তি বাকি অংশগুলোও দ্রুত বাস্তবায়ন হবে। তবে এর জন্যে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন বক্তারা। সকালে ঐতিহাসিক পার্বত্য চুক্তির ২২তম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ র‌্যালী ও আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

রাঙ্গামাটি ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনিষ্টিটিউট প্রাঙ্গণে পার্বত্য চুক্তির ২২বছর পূর্তি উপলক্ষে রাঙ্গামাটি সরকারী কলেজ থেকে এক বর্নাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। পরে ইনিষ্টিটিউট মিলনায়তনে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, রাঙ্গামাটি সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার। জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমার সভাপতিত্বে রাঙ্গামাটি রিজিয়ন কমান্ডার বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মোঃ মাইনুর রহমান, জেলা প্রশাসক একে এম মামুনুর রশিদ, পুলিশ সুপার আলমগীর কবির, আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য হাজ্বী কামাল’সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান প্রধান বক্তব্য দেন। এছাড়া বিকালে রাঙ্গামাটি চিংহ্লা মং মারী ষ্টেডিয়ামে রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ ও রাঙ্গামাটি রিজিয়নের উদ্যোগে দেশের স্বনামধন্য ও স্থানীয় শিল্পীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। বিডিটুডেস/এএনবি/ ০২ ডিসেম্বর, ২০১৯

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

four × 5 =